Add more content here...
Dhaka ০৩:৫৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনামঃ
টাঙ্গাইলে আওয়ামীলীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন গণতন্ত্র আছে বলেইদেশ এগিয়ে যাচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী খুলনা দাকোপে আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাতা বার্ষিকী উদযাপন লোহাগাড়ায় গৃহবধূর পরকীয়ার বিচার চেয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের সংবাদ সম্মেলন বগুড়া সদর শেখেরকোলাই তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ড্রেনের কাদায় মাথা চুবিয়ে বৃদ্ধ কে হত্যা বগুড়ার কাহালুতে বাসের ধাক্কায় সড়কে ঝরল দু’টি প্রাণ আওয়ামী লীগের৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ঈশ্বরদীতে ট্রাঙ্কে লুকানো এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার টাঙ্গাইলে বিষধর রাসেলস ভাইপার সাপে দেখা মিলেছে ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক আরও গভীর করতে ৭টি নতুন সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর
নোটিশঃ
প্রিয়" পাঠকগণ", "শুভাকাঙ্ক্ষী" ও প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে জানানো যাচ্ছে:- কিছুদিন যাবত কিছু প্রতারক চক্র দৈনিক ক্রাইম তালাশ এর নাম ব্যবহার করে প্রতিনিধি নিয়োগ ও বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। তার সাথে একটি সক্রিয় চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন গ্রুপ বিভিন্ন ভাবে "দৈনিক ক্রাইম তালাশ"কে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মনে রাখবেন "দৈনিক ক্রাইম তালাশ" এর অফিসিয়াল পেজ বা নিম্নের দুটি নাম্বার ব্যাতিত কোন রকম লেনদেনে জড়াবেন না। মোবাইল: 01867329107 হটলাইন: 01935355252

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল উদ্বোধন ২৮ অক্টোবর, উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৫:৩৮:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২৩
  • ৩১০ Time View

মোঃ মিজানুর রহমান,আনোয়ার প্রতিনিধি: চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল উদ্বোধনের প্রস্তুতি চলছে। নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে প্রায় শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে। এই টানেলের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম নগরীর সঙ্গে কর্ণফুলী নদীর অপর প্রান্তে সড়কপথে দক্ষিণ চট্টগ্রামকে যুক্ত করা হয়। টানেলটি সরাসরি চট্টগ্রাম বন্দরকে আনোয়ারা উপজেলার সঙ্গে সংযুক্ত করবে, যা কক্সবাজারকে সরাসরি চট্টগ্রামের সঙ্গে সংযুক্ত করবে। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থার যুগান্তকারী উন্নতির পাশাপাশি দেশ অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম টানেল টিউবের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।

এর আগে ২০১৬ সালের ১৪ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং যৌথভাবে বঙ্গবন্ধু টানেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রকল্পের ঠিকাদার হিসেবে কাজ করছে চায়না কমিউনিকেশনস কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড।

বঙ্গবন্ধু টানেল নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ও চীন সরকারের যৌথ অর্থায়নে টানেল প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। চীনের এক্সিম ব্যাংক দুই শতাংশ সুদে ৫ হাজার ৯১৩ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে এবং বাকি অংশের অর্থায়ন করছে বাংলাদেশ সরকার।

টানেলে ৩৫ ফুট চওড়া ও ১৬ ফুট উঁচু এবং ১১ মিটার ব্যবধানে দুটি টিউব তৈরি করা হয়েছে যাতে ভারী যানবাহনগুলি সহজেই টানেলের মধ্য দিয়ে চলাচল করতে পারে।

টানেলের দৈর্ঘ্য ৩.৪০ কিলোমিটার। এটির সঙ্গে ৫.৩৫ কিলোমিটারের একটি অ্যাপ্রোচ রোডের পাশাপাশি একটি ৭৪০ মিটার সেতু রয়েছে যা মূল শহর, বন্দর এবং নদীর পশ্চিম দিককে এর পূর্ব দিকের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে।

শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেলের কারণে চট্টগ্রাম অঞ্চলের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ব্যাপকহারে বাড়বে। এর প্রভাব পড়বে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের সঙ্গে দক্ষিণ চট্টগ্রাম ছাড়াও পর্যটন নগর কক্সবাজার এবং পার্বত্য জেলা বান্দরবানের সেতুবন্ধ তৈরি করবে। এছাড়া দেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি হবে শূন্য দশমিক ১৬৬ শতাংশ।

টানেলকে কেন্দ্র করে গত কয়েক বছরে পরিবর্তনের রূর ধারণ করে আনোয়ারা। কালাবিবির দীঘি এলাকায় থেতে শুরু করে আশেপাশে ঘড়ে উঠেছে একাধিক বাণিজ্যিক ও আবাসিক বহুতল ভবন। আশেপাশে কয়েক কিলোমিটারের জুড়ে কারখানা স্থাপনের জন্য জমি কিনছে দেশের শীর্ষ শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলো।

টানেলটি চালু হলে প্রতিদিন ১৭ হাজার ২৬০টি এবং বছরে ৭৬ লাখ যানবাহন চলাচল করতে পারবে। টানেলের সম্ভাব্যতা সমীক্ষার তথ্যানুযায়ী, টানেল চালু হওয়ার পর ২০২৫ সালে গড়ে প্রতিদিন ২৮ হাজার ৩০৫টি যানবাহন চলাচল করবে। এ ছাড়া ২০৩০ সালে যানবাহন চলাচলের প্রাক্কলন করা হয়েছে ৩৭ হাজার ৯৪৬টি। তাছাড়াও ১ লাখ ৬২ হাজার যানবাহন চলাচলের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২০৬৭ সালে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শেষ মুহূর্তের সিভিল, মেকানিক্যাল, ইলেকট্রিক ও সাজসজ্জার কাজও শেষ। নৌবাহিনী ও পুলিশের যৌথ ট্রায়াল রান অনুষ্ঠিত হয় ও টানেলের নিরাপত্তার দিকগুলো পরীক্ষা করা হয়েছে। গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়লে, অগ্নিকাণ্ডজনিত কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে তা মোকাবিলা ও কি ভাবে উদ্ধার তৎপরতা পরিচালনা করা যায়, সেসব বিষয় খতিয়ে দেখা হয়। পরবর্তীতে নিরাপত্তার এ ট্রায়াল রান সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Popular Post

বাংলাদেশি it কোম্পানি

টাঙ্গাইলে আওয়ামীলীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

x

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল উদ্বোধন ২৮ অক্টোবর, উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

Update Time : ০৫:৩৮:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২৩

মোঃ মিজানুর রহমান,আনোয়ার প্রতিনিধি: চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল উদ্বোধনের প্রস্তুতি চলছে। নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে প্রায় শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে। এই টানেলের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম নগরীর সঙ্গে কর্ণফুলী নদীর অপর প্রান্তে সড়কপথে দক্ষিণ চট্টগ্রামকে যুক্ত করা হয়। টানেলটি সরাসরি চট্টগ্রাম বন্দরকে আনোয়ারা উপজেলার সঙ্গে সংযুক্ত করবে, যা কক্সবাজারকে সরাসরি চট্টগ্রামের সঙ্গে সংযুক্ত করবে। এতে যোগাযোগ ব্যবস্থার যুগান্তকারী উন্নতির পাশাপাশি দেশ অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রথম টানেল টিউবের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।

এর আগে ২০১৬ সালের ১৪ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং যৌথভাবে বঙ্গবন্ধু টানেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রকল্পের ঠিকাদার হিসেবে কাজ করছে চায়না কমিউনিকেশনস কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড।

বঙ্গবন্ধু টানেল নির্মাণে ব্যয় হচ্ছে ১০ হাজার ৩৭৪ কোটি টাকা। বাংলাদেশ ও চীন সরকারের যৌথ অর্থায়নে টানেল প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। চীনের এক্সিম ব্যাংক দুই শতাংশ সুদে ৫ হাজার ৯১৩ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে এবং বাকি অংশের অর্থায়ন করছে বাংলাদেশ সরকার।

টানেলে ৩৫ ফুট চওড়া ও ১৬ ফুট উঁচু এবং ১১ মিটার ব্যবধানে দুটি টিউব তৈরি করা হয়েছে যাতে ভারী যানবাহনগুলি সহজেই টানেলের মধ্য দিয়ে চলাচল করতে পারে।

টানেলের দৈর্ঘ্য ৩.৪০ কিলোমিটার। এটির সঙ্গে ৫.৩৫ কিলোমিটারের একটি অ্যাপ্রোচ রোডের পাশাপাশি একটি ৭৪০ মিটার সেতু রয়েছে যা মূল শহর, বন্দর এবং নদীর পশ্চিম দিককে এর পূর্ব দিকের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে।

শিল্পোদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা বলছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেলের কারণে চট্টগ্রাম অঞ্চলের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড ব্যাপকহারে বাড়বে। এর প্রভাব পড়বে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে। দেশের অন্যান্য অঞ্চলের সঙ্গে দক্ষিণ চট্টগ্রাম ছাড়াও পর্যটন নগর কক্সবাজার এবং পার্বত্য জেলা বান্দরবানের সেতুবন্ধ তৈরি করবে। এছাড়া দেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি হবে শূন্য দশমিক ১৬৬ শতাংশ।

টানেলকে কেন্দ্র করে গত কয়েক বছরে পরিবর্তনের রূর ধারণ করে আনোয়ারা। কালাবিবির দীঘি এলাকায় থেতে শুরু করে আশেপাশে ঘড়ে উঠেছে একাধিক বাণিজ্যিক ও আবাসিক বহুতল ভবন। আশেপাশে কয়েক কিলোমিটারের জুড়ে কারখানা স্থাপনের জন্য জমি কিনছে দেশের শীর্ষ শিল্প প্রতিষ্ঠান গুলো।

টানেলটি চালু হলে প্রতিদিন ১৭ হাজার ২৬০টি এবং বছরে ৭৬ লাখ যানবাহন চলাচল করতে পারবে। টানেলের সম্ভাব্যতা সমীক্ষার তথ্যানুযায়ী, টানেল চালু হওয়ার পর ২০২৫ সালে গড়ে প্রতিদিন ২৮ হাজার ৩০৫টি যানবাহন চলাচল করবে। এ ছাড়া ২০৩০ সালে যানবাহন চলাচলের প্রাক্কলন করা হয়েছে ৩৭ হাজার ৯৪৬টি। তাছাড়াও ১ লাখ ৬২ হাজার যানবাহন চলাচলের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২০৬৭ সালে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, শেষ মুহূর্তের সিভিল, মেকানিক্যাল, ইলেকট্রিক ও সাজসজ্জার কাজও শেষ। নৌবাহিনী ও পুলিশের যৌথ ট্রায়াল রান অনুষ্ঠিত হয় ও টানেলের নিরাপত্তার দিকগুলো পরীক্ষা করা হয়েছে। গাড়ি দুর্ঘটনার কবলে পড়লে, অগ্নিকাণ্ডজনিত কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে তা মোকাবিলা ও কি ভাবে উদ্ধার তৎপরতা পরিচালনা করা যায়, সেসব বিষয় খতিয়ে দেখা হয়। পরবর্তীতে নিরাপত্তার এ ট্রায়াল রান সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।