Add more content here...
Dhaka ১০:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনামঃ
ধামরাইয়ে প্রায় এক কেজি হেরোইন সহ মাদক কারবারি গ্রেফতার রমজানের এক মাস আগেই বাড়তে শুরু করেছে নিত্যপণ্যের বাজার নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে বিশ্ব ব্যাংকের বিশেষ তহবিল চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টাঙ্গাইলের সখিপুরে ছেলের হাতে বাবা খুন দৌলতপুর ধামশ্বর ইউনিয়নে রাতের আঁধারে মাটি বিক্রি,হুমকিতে ফসলি জমি চট্টগ্রাম সাতকানিয়ায় মোবাইল কোর্টের ৫০,০০০টাকা জরিমানা নাহিদ হাসান (১৬) হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন ও লুষ্ঠিত মোটরসাইকেল উদ্ধারসহ গ্রেফতার ০৫ আদিতমারী সমবায় সেক্টরে আলো ছড়াচ্ছেন ফজলে এলাহী মহিপুরে সাধুর ব্রিজ ভেঙে পড়ল খালে, ভোগান্তিতে পর্যটক সহ ৫ গ্রামের মানুষ গোপালগঞ্জে পতিত জমিতে মিলছে মণে মণে মাছ: প্রধানমন্ত্রী
নোটিশঃ
প্রিয়" পাঠকগণ", "শুভাকাঙ্ক্ষী" ও প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে জানানো যাচ্ছে:- কিছুদিন যাবত কিছু প্রতারক চক্র দৈনিক ক্রাইম তালাশ এর নাম ব্যবহার করে প্রতিনিধি নিয়োগ ও বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। তার সাথে একটি সক্রিয় চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন গ্রুপ বিভিন্ন ভাবে "দৈনিক ক্রাইম তালাশ"কে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মনে রাখবেন "দৈনিক ক্রাইম তালাশ" এর অফিসিয়াল পেজ বা নিম্নের দুটি নাম্বার ব্যাতিত কোন রকম লেনদেনে জড়াবেন না। মোবাইল: 01867329107 হটলাইন: 01935355252

প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সম্পর্কে বিএনপি যা আড়াল করতে মরিয়া-বাংলাদেশের প্রথম সামরিক স্বৈরশাসকের গণহত্যা ও রক্তাক্ত ইতিহাস

  • Reporter Name
  • Update Time : ০২:১৪:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪
  • ৯২ Time View

এস,কে কৃষ্ণা,ঢাকা বিভাগীয় ব্যুরো চীফঃবিএনপি নেতারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যখন দলটির প্রতিষ্ঠাতা জেনারেল জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রশংসা বর্ষণ করছেন, তখন সেই চাকচিক্য মান প্রশংসার নিচে চাপা পড়ে রয়েছে দেশের প্রথম সামরিক স্বৈরশাসকের নেতৃত্বে বিশ্বাসঘাতক ও হত্যাকাণ্ডের এক ইতিহাস।
১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনিদের মদদ দিয়ে ইতিহাসের নৃশংসতম হত্যাকাণ্ডের সহায়তার পর এই খুনিদের রক্ষায় বলবৎ করেছিলেন কলঙ্কজনক ইনডিমনিটি আইন।

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সামরিক শক্তির অংশ হিসেবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের সংস্কৃতির জন্ম দেন জেনারেল জিয়া। বাংলাদেশে পাকিস্তানের ধাঁচের সামরিক শাসন চেয়েছিলেন তিনি। আর এ বিষয়টি সফল করার জন্য সামরিক শক্তিকে আঁতুড় ঘর হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন তিনি যেমনটা পাকিস্তানে হয়।

মুজিব পরিবারের গণহত্যার কয়েক ঘন্টা পরে, জুনিয়র অফিসাররা জিয়ার কাছে ছুটে যান নির্দেশের জন্য, যেহেতু তিনি উপপ্রধান ছিলেন। বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন অনুসারে, খুনিদের খুঁজে বের করার জন্য কোনো দ্রুত অভিযানের নির্দেশ দেওয়ার পরিবর্তে, জিয়া তখন তাদের বলেছিলেন: ‘তাহলে রাষ্ট্রপতি মারা গেলে, ভাইস প্রেসিডেন্ট এখানে আছেন।’

স্বাধীন গবেষকদের মতে, জেনারেল জিয়া সেনাপ্রধানের পদ গ্রহণের পর দ্রুত খুনিদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেন এবং অপরাধীদের বিচার থেকে রক্ষা করার জন্য একটি কালো আইন প্রবর্তন করেন, যা বিচার বিভাগের জন্য অসম্মানজনক।

মুক্তিযুদ্ধের নায়করা তখনও সেনাবাহিনীতে কাজ করছিলেন, তারা জানতেন যে এক বড় সমস্যায় পড়েছেন তারা। কেননা জেনারেল জিয়ার চারপাশে দলবদ্ধ হয়েছিল পাকিস্থান থেকে ফেরত আশা সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা। শিগগিরই তাদের দুশ্চিন্তা সত্য হয়ে যায়। কারণ জিয়া সামরিক বাহিনীকে শৃঙ্খলাবদ্ধ করার অজুহাতে এই বাহিনীতে যুক্ত থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের একের পর এক মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে।

জিয়ার নির্দেশে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া ব্যক্তিদের মৃতদেহের সন্ধানে এখনও করছে তাদের পরিবার। পাঁচ দশক পেরিয়ে গেলেও এই ফাঁসির জন্য কাউকে বিচারের আওতায় আনা হয়নি।

এখন, প্রায় পাঁচ দশক ধরে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত, এই মুক্তিযুদ্ধের বীরদের পরিবারের এক হাজারেরও বেশি সদস্য ‘মায়ের কান্না’ নামে একটি মঞ্চ তৈরি করেছেন এবং নিজ পরিবারের হারিয়ে যাওয়া সদস্যদের লাশের সন্ধানের আশায় সম্ভাব্য সকল দরজায় কড়া নাড়তে শুরু করেছে। এই বীরদের দেহাবশেষ খুঁজে পাওয়া এবং বেআইনি মৃত্যুদণ্ডের বিচার দাবির পাশাপাশি তাদের যে অপমান করা হয়েছে তার থেকে মুক্তির দাবি করছেন তাঁরা।

জায়েদুল আহসান পিন্টু, একজন সিনিয়র গবেষক এবং সাংবাদিক এবং এ বিষয়ে ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত একটি বইয়ের লেখক। তিনি বলেছেন যে, সামরিক ট্রাইব্যুনালের বিচারকদের কাছ থেকে কত তাড়াহুড়ো করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল। তিনি জানান, “বিচারকরা বলেছেন জিয়া আদেশে স্বাক্ষর করেছেন। তারা কেবল এটি পড়েছিল।” তিনি তার বইতে প্রকাশ করেছিলেন, আইনের শাসনের প্রতি জিয়ার সম্পূর্ণ অবজ্ঞা এবং মানবাধিকারের অনিশ্চিত অবস্থার একটি সাক্ষ্য, যা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর গণহত্যাকে সমর্থন করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

জিয়ার আশীর্বাদপুষ্ট সহযোগীরা আরেকটি পাকিস্তানি শাসন তৈরি করতে চেয়েছিলেন যার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছিলেন এই দেশের ৩০ লাখ মানুষ। সেই সকল শহীদদের রক্তের ত্যাগকে ধুলায় মিশিয়ে দেওয়ার জন্যই কাজ করেছিলেন জিয়া।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পেছনে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ‘সংযোগ’ তদন্ত হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন সাংবাদিক লরেন্স লিফশুল্টজ।

এই হত্যাকাণ্ডের পিছনের লোকেরা জিয়ার সমর্থন ছাড়া কাজটি করত না, লিফশুল্টজ এমন মতামত দিয়েছিলেন। অন্যদিকে আমেরিকান সমর্থন ছাড়া জিয়াও কাজটি করার সাহস দেখাতেন না বলে মন্তব্য করেন তিনি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর পরিবারের গণহত্যার সময় ফার ইস্টার্ন ইকোনমিক রিভিউ-এর দক্ষিণ এশিয়া সংবাদদাতা লিফশুল্টজ বলেছিলেন, “আমার দৃষ্টিতে, এটি আরও তদন্ত করা দরকার।”

জেনারেল জিয়া সর্বদাই দেশের সামরিক নিয়ন্ত্রণে আগ্রহী ছিলেন কারণ তিনি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দেশটির যুদ্ধের মধ্যে দেশের জন্য একটি পাকিস্তানের মতো সামরিক শাসনের পরিকল্পনা করেছিলেন। বিবিসির একজন প্রাক্তন সাংবাদিক ‘মিডনাইট মেসাকার’ নামক তার বইয়ে বাংলাদেশের এই হত্যাকাণ্ডের উপর এক বিষয়ে এমনটা লিখেছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধর সংবাদ সংগ্রহের জন্য কাজ করেছিলেন।

তার মতে, ‘মধ্যরাতের গণহত্যা’ এর প্রভাব বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি নতুন জঘন্য অধ্যায়ের সূচনা কর। যেখানে সামরিক সরকারগুলি দেশের ধর্মনিরপেক্ষতার পরিচয় ধ্বংস করেছে, সংবিধান থেকে বাতিল করেছে “ধর্মনিরপেক্ষতা” এবং সাংবিধানিক সংশোধনীর মাধ্যমে “ইসলাম” প্রতিষ্ঠা করেছে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Popular Post

বাংলাদেশি it কোম্পানি

ধামরাইয়ে প্রায় এক কেজি হেরোইন সহ মাদক কারবারি গ্রেফতার

x

প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সম্পর্কে বিএনপি যা আড়াল করতে মরিয়া-বাংলাদেশের প্রথম সামরিক স্বৈরশাসকের গণহত্যা ও রক্তাক্ত ইতিহাস

Update Time : ০২:১৪:৩৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২৪

এস,কে কৃষ্ণা,ঢাকা বিভাগীয় ব্যুরো চীফঃবিএনপি নেতারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যখন দলটির প্রতিষ্ঠাতা জেনারেল জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে প্রশংসা বর্ষণ করছেন, তখন সেই চাকচিক্য মান প্রশংসার নিচে চাপা পড়ে রয়েছে দেশের প্রথম সামরিক স্বৈরশাসকের নেতৃত্বে বিশ্বাসঘাতক ও হত্যাকাণ্ডের এক ইতিহাস।
১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের খুনিদের মদদ দিয়ে ইতিহাসের নৃশংসতম হত্যাকাণ্ডের সহায়তার পর এই খুনিদের রক্ষায় বলবৎ করেছিলেন কলঙ্কজনক ইনডিমনিটি আইন।

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো সামরিক শক্তির অংশ হিসেবে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা দখলের সংস্কৃতির জন্ম দেন জেনারেল জিয়া। বাংলাদেশে পাকিস্তানের ধাঁচের সামরিক শাসন চেয়েছিলেন তিনি। আর এ বিষয়টি সফল করার জন্য সামরিক শক্তিকে আঁতুড় ঘর হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন তিনি যেমনটা পাকিস্তানে হয়।

মুজিব পরিবারের গণহত্যার কয়েক ঘন্টা পরে, জুনিয়র অফিসাররা জিয়ার কাছে ছুটে যান নির্দেশের জন্য, যেহেতু তিনি উপপ্রধান ছিলেন। বিবিসি বাংলার প্রতিবেদন অনুসারে, খুনিদের খুঁজে বের করার জন্য কোনো দ্রুত অভিযানের নির্দেশ দেওয়ার পরিবর্তে, জিয়া তখন তাদের বলেছিলেন: ‘তাহলে রাষ্ট্রপতি মারা গেলে, ভাইস প্রেসিডেন্ট এখানে আছেন।’

স্বাধীন গবেষকদের মতে, জেনারেল জিয়া সেনাপ্রধানের পদ গ্রহণের পর দ্রুত খুনিদের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেন এবং অপরাধীদের বিচার থেকে রক্ষা করার জন্য একটি কালো আইন প্রবর্তন করেন, যা বিচার বিভাগের জন্য অসম্মানজনক।

মুক্তিযুদ্ধের নায়করা তখনও সেনাবাহিনীতে কাজ করছিলেন, তারা জানতেন যে এক বড় সমস্যায় পড়েছেন তারা। কেননা জেনারেল জিয়ার চারপাশে দলবদ্ধ হয়েছিল পাকিস্থান থেকে ফেরত আশা সেনাবাহিনীর কর্মকর্তারা। শিগগিরই তাদের দুশ্চিন্তা সত্য হয়ে যায়। কারণ জিয়া সামরিক বাহিনীকে শৃঙ্খলাবদ্ধ করার অজুহাতে এই বাহিনীতে যুক্ত থাকা মুক্তিযোদ্ধাদের একের পর এক মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে।

জিয়ার নির্দেশে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া ব্যক্তিদের মৃতদেহের সন্ধানে এখনও করছে তাদের পরিবার। পাঁচ দশক পেরিয়ে গেলেও এই ফাঁসির জন্য কাউকে বিচারের আওতায় আনা হয়নি।

এখন, প্রায় পাঁচ দশক ধরে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত, এই মুক্তিযুদ্ধের বীরদের পরিবারের এক হাজারেরও বেশি সদস্য ‘মায়ের কান্না’ নামে একটি মঞ্চ তৈরি করেছেন এবং নিজ পরিবারের হারিয়ে যাওয়া সদস্যদের লাশের সন্ধানের আশায় সম্ভাব্য সকল দরজায় কড়া নাড়তে শুরু করেছে। এই বীরদের দেহাবশেষ খুঁজে পাওয়া এবং বেআইনি মৃত্যুদণ্ডের বিচার দাবির পাশাপাশি তাদের যে অপমান করা হয়েছে তার থেকে মুক্তির দাবি করছেন তাঁরা।

জায়েদুল আহসান পিন্টু, একজন সিনিয়র গবেষক এবং সাংবাদিক এবং এ বিষয়ে ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত একটি বইয়ের লেখক। তিনি বলেছেন যে, সামরিক ট্রাইব্যুনালের বিচারকদের কাছ থেকে কত তাড়াহুড়ো করে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল। তিনি জানান, “বিচারকরা বলেছেন জিয়া আদেশে স্বাক্ষর করেছেন। তারা কেবল এটি পড়েছিল।” তিনি তার বইতে প্রকাশ করেছিলেন, আইনের শাসনের প্রতি জিয়ার সম্পূর্ণ অবজ্ঞা এবং মানবাধিকারের অনিশ্চিত অবস্থার একটি সাক্ষ্য, যা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর গণহত্যাকে সমর্থন করার জন্য তৈরি করা হয়েছিল।

জিয়ার আশীর্বাদপুষ্ট সহযোগীরা আরেকটি পাকিস্তানি শাসন তৈরি করতে চেয়েছিলেন যার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে শহীদ হয়েছিলেন এই দেশের ৩০ লাখ মানুষ। সেই সকল শহীদদের রক্তের ত্যাগকে ধুলায় মিশিয়ে দেওয়ার জন্যই কাজ করেছিলেন জিয়া।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পেছনে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের ‘সংযোগ’ তদন্ত হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন সাংবাদিক লরেন্স লিফশুল্টজ।

এই হত্যাকাণ্ডের পিছনের লোকেরা জিয়ার সমর্থন ছাড়া কাজটি করত না, লিফশুল্টজ এমন মতামত দিয়েছিলেন। অন্যদিকে আমেরিকান সমর্থন ছাড়া জিয়াও কাজটি করার সাহস দেখাতেন না বলে মন্তব্য করেন তিনি। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর পরিবারের গণহত্যার সময় ফার ইস্টার্ন ইকোনমিক রিভিউ-এর দক্ষিণ এশিয়া সংবাদদাতা লিফশুল্টজ বলেছিলেন, “আমার দৃষ্টিতে, এটি আরও তদন্ত করা দরকার।”

জেনারেল জিয়া সর্বদাই দেশের সামরিক নিয়ন্ত্রণে আগ্রহী ছিলেন কারণ তিনি ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে দেশটির যুদ্ধের মধ্যে দেশের জন্য একটি পাকিস্তানের মতো সামরিক শাসনের পরিকল্পনা করেছিলেন। বিবিসির একজন প্রাক্তন সাংবাদিক ‘মিডনাইট মেসাকার’ নামক তার বইয়ে বাংলাদেশের এই হত্যাকাণ্ডের উপর এক বিষয়ে এমনটা লিখেছিলেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধর সংবাদ সংগ্রহের জন্য কাজ করেছিলেন।

তার মতে, ‘মধ্যরাতের গণহত্যা’ এর প্রভাব বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি নতুন জঘন্য অধ্যায়ের সূচনা কর। যেখানে সামরিক সরকারগুলি দেশের ধর্মনিরপেক্ষতার পরিচয় ধ্বংস করেছে, সংবিধান থেকে বাতিল করেছে “ধর্মনিরপেক্ষতা” এবং সাংবিধানিক সংশোধনীর মাধ্যমে “ইসলাম” প্রতিষ্ঠা করেছে।