Add more content here...
Dhaka ০৫:০২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনামঃ
১২ ব্রিজ নির্মাণ করে ৪০ গ্রামের মানুষের যোগাযোগের ব্যবস্থা করলেন এমপি বিপ্লব হাসান পলাশ লালপুর উপজেলার ভেল্লাবাড়িয়া হযরত বাগুদেওয়ান (রাঃ) এর মাজার মসজিদের টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টায় থানায় অভিযোগ ২০২৩/২৫ ঢাকাস্থ শিয়ালকাঠী ইউনিয়ন কল্যাণ সমিতি পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা সম্পত্তির লোভে শ্বশুরকে জামাতার হত্যা ইনাতগঞ্জ ডিগ্রী কলেজে অধ্যক্ষ ও শিক্ষকের অপসারণের দাবিতে এবার শিক্ষার্থীদের কর্মসূচি অবস্থান ও ধর্মঘট বিডি ক্লিন গাজীপুর টঙ্গী জোন (০১) এক রৌমারীতে দূর্ভোগ থেকে রেহাই পেয়ে এ্যাড . বিপ্লব হাসান পলাশ এমপিকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী বগুড়া শাজাহানপুরে টয়লেটের সেফটি ট্যাংক থেকে দুই পরিচ্ছন্ন কর্মীর মরদেহ উদ্ধার নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন করে আম ছালা দুই গেলো বগুড়ার কাহালুতে পূর্বের শত্রুতার জের ধরে পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে প্রায় আড়াই লক্ষ টাকার রেণু পোনা ক্ষতি
নোটিশঃ
প্রিয়" পাঠকগণ", "শুভাকাঙ্ক্ষী" ও প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে জানানো যাচ্ছে:- কিছুদিন যাবত কিছু প্রতারক চক্র দৈনিক ক্রাইম তালাশ এর নাম ব্যবহার করে প্রতিনিধি নিয়োগ ও বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। তার সাথে একটি সক্রিয় চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন গ্রুপ বিভিন্ন ভাবে "দৈনিক ক্রাইম তালাশ"কে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মনে রাখবেন "দৈনিক ক্রাইম তালাশ" এর অফিসিয়াল পেজ বা নিম্নের দুটি নাম্বার ব্যাতিত কোন রকম লেনদেনে জড়াবেন না। মোবাইল: 01867329107 হটলাইন: 01935355252

প্রতিজ্ঞা করেছিলাম ফিরে আসবোই – শেখ হাসিনা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৯:৩২:৩৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ মে ২০২৪
  • ৩১ Time View

এস,কে কৃষ্ণা ঢাকা বিভাগীয় ব্যুরো চীফঃ ওয়ান ইলেভেন সরকারের সময় ২০০৭ সালের ৭ মে যুক্তরাষ্ট্র থেকে লন্ডন হয়ে সরকারের বাধা উপেক্ষা করে দেশে ফেরার প্রসঙ্গে জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। সেদিন সরকারের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বিমানবন্দরে স্বাগত জানানোর জন্য দলের নেতাকর্মী ও দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি।

মঙ্গলবার (৭ মে) সংসদে ওই সময়কার ঘটনা বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বারবার গ্রেফতার হয়েছি। অনেক বাধা, সরাসরি গুলি, বোমা, গ্রেনেড সবকিছু অতিক্রম করে আজ জনগণের সেবা করতে পারছি। সাহসের সঙ্গে এগিয়ে চলে জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। জনগণের শক্তি নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি।

এর আগে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং সরকারের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী আব্দুর রহমান ২০০৭ সালের ৭ মে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন নিয়ে সংসদে অনির্ধারিত আলোচনার সূত্রপাত করেন। বিষয়টি নিয়ে সরকারি দলের অপর এমপি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনও কথা বলেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকের দিনটি আমার জন্য অনন্য দিন। আমি সেদিন শত বাধা অতিক্রম করে ফিরে এসেছিলাম। সেই সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অনেক উপদেষ্টাও ফোন করে বলেছিলেন আপনি আসবেন না। আপনার বাইরে থাকার যা যা লাগে আমরা করবো। আবার কেউ কেউ আমাকে ধমকও দিয়েছিল। এ কথা বলা হয়েছিল, বাংলাদেশে ফিরলে বিমানবন্দরেই মেরে ফেলা হবে।

তিনি বলেন, আমি বলেছিলাম- আলহামদুলিল্লাহ, বাংলাদেশের মাটিতেই মরবো। কিন্তু আমি আসবো। সব এয়ারলাইন্সকে নিষেধ করা হয়েছিল আমাকে যাতে বোর্ডিং পাস দেওয়া না হয়। আমেরিকার বিমানবন্দরে তিন ঘণ্টা দাঁড়িয়ে তাদের সঙ্গে ঝগড়া করে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজে লন্ডনে আসি। সেখানে আসার পরে যখন প্লেনে উঠতে যাবো, তখন আমাকে উঠতে দেওয়া হয়নি। সেদিন প্রতিজ্ঞা করেছিলাম যেভাবে হোক বাংলাদেশে আসবো। এমনকি যখন আমি বিমানবন্দরে রওনা হই তখন অনেকেই ফোন করে বলেছিল আপনি আসবেন না, আসলে মেরে ফেলে দেবে। আমি পরোয়া করিনি।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, তখন বলা হয়েছিল কেউ যাতে বিমানবন্দরে না যায়। এমনকি আমার দলের ভেতর থেকেও…তখন দলের যিনি সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, তিনি সবাইকে বলে দিয়েছিলেন কেউ বিমানবন্দরে গেলে বহিষ্কার করা হবে। কয়েকজনের নাম নির্দিষ্ট করা ছিল, আমাদের নেতাকর্মী কেউ রাস্তায় থাকতে পারবে না। আমি শুধু মেসেজ দিয়েছিলাম সবাই থাকবে। তবে আমরা গেরিলা যুদ্ধ করেছি, সবাই ঘাসের সঙ্গে মিশে থাকবা। আমি প্লেন থেকে না নামা পর্যন্ত তোমরা বের হবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাকে বলা হয়েছিল গাড়িতে উঠলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হবে। আমি উঠে ড্রাইভারকে বলেছিলাম যেখানে মানুষ আছে সেখান দিয়ে যাবা। ফ্লাইওভারে উঠবা না। হাজার হাজার মানুষ রাস্তায়। আমি কৃতজ্ঞতা জানাই পার্টির নেতাকর্মীদের, সেদিন তারা একদিকে রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেছে, আরেক দিকে আমাদের দলের কিছু লোকের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থেকে সংবর্ধনা দিয়েছিল। এটা সংবর্ধনাই শুধু নয়, আমাকে নিরাপত্তাও দিয়েছে। যেন আমাকে কোনোদিকে নিতে না পারে। এরপর তো এক প্রকার হাউজ অ্যারেস্ট (সুধা সদন) ছিলাম। কাউকে ঢুকতে দিতো না। হঠাৎ কালেভদ্রে দু-একজন আসতে পারতো আমার কাছে।

শেখ হাসিনা ওয়ান ইলেভেন সরকারের সময় গ্রেফতার হওয়ার আগে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ক্যানসার আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিনকে দেখতে যাওয়ার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, আমি অনেকটা গেরিলা কায়দায়ই বেরিয়ে গিয়েছিলাম। কারণ আমি জানি আমাকে বের হতে দেবে না। সেই সময়ে পুলিশের চোখ এড়িয়ে সোজা হাসপাতালে চলে যাই। তখন আমি কতগুলো কথা বলেছিলাম। কারণ সেই সময় দেশ চালাচ্ছে কে– সেটা আমার প্রশ্ন ছিল। সেদিন আমি খুব কড়া কথা কিছু বলি। পরদিন সকালেই পুলিশ হাজির, আর্মি হাজির এবং আমাকে অ্যারেস্ট করে। সংসদ ভবনের একটা… তখন ওটা প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল, সেখানে আমাকে নিয়ে আসে। সমস্ত একেবারে ফাংগাস পড়া। খুবই নোংরা একটা ভবন। সেখানে আমাকে বন্দি করে রাখে।

তিনি বলেন, শুধু ওই দিন নয়, ১৯৮৩ সালে এরশাদ সাহেবও আমাদের গ্রেফতার করে নিয়ে গিয়েছিল ৩০ নম্বর হেয়ার রোড, লাল দালান, সেখানে রেখেছিল। সেখান থেকে ডিজিএফআইয়ের অফিসে নিয়ে যায় জিজ্ঞাসাবাদ করতে। এরশাদ সাহেবের সময়ে বেশ কয়েকবার গ্রেফতার করে, হাউজ অ্যারেস্ট করে। কখনও সারা রাত কন্ট্রোল রুমে বসিয়ে রাখে। এরকম বারবার গ্রেফতারও হয়েছি। অনেক বাধা, সরাসরি গুলি, বোমা, গ্রেনেড সবকিছু অতিক্রম করে আজ এখানে এসে জনগণের সেবা করতে পারছি। আমি বাংলাদেশের জনগণ ও আমার দলের নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে দাঁড়িয়েছি। আজ অনেকে বেঁচে নেই। তারা এবং সাধারণ জনগণ রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সেদিন গিয়েছিলেন। যার জন্য আমি দেশে ফিরে আসতে পেরেছি।

আমি প্রতিজ্ঞা করেছিলাম আমি ফিরে আসবোই। ১৭ মে (১৯৮১ সালের) ওইভাবে এসেছিলাম। পরে ৭ মে এসেছিলাম ২০০৭ সালে। আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এটুকু বলতে চাই, বাবা মা আমাদের শিখিয়েছেন সাহসের সঙ্গে এগিয়ে চলা। সেই সাহসের সঙ্গে এগিয়ে চলে জনগণের জন্য কাজ করা। সেটাই আমি করে যাচ্ছি। বাবা, মা, ভাইদের হারিয়ে আমার আর কিছুই ছিল না। দেশের জনগণই আমার একমাত্র শক্তি ও প্রেরণা। এই শক্তি নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ করবো, যোগ করেন শেখ হাসিনা।

ওয়ান ইলেভেনের সময় বোন রেহানার ভূমিকা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমি যখন বন্দি ছিলাম, আমার ছোট বোন রেহানা, সে রাজনীতি করে না। সামনে নেই। কিন্তু সে অসাধ্য সাধন করতে পারে। প্রত্যেকটা জেলা-উপজেলার সব নেতাকর্মী সবার সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছে। ওই লন্ডনে বসেই সে কাজ করেছে। তার জন্যও আমার দোয়া।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Popular Post

বাংলাদেশি it কোম্পানি

১২ ব্রিজ নির্মাণ করে ৪০ গ্রামের মানুষের যোগাযোগের ব্যবস্থা করলেন এমপি বিপ্লব হাসান পলাশ

x

প্রতিজ্ঞা করেছিলাম ফিরে আসবোই – শেখ হাসিনা

Update Time : ০৯:৩২:৩৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৮ মে ২০২৪

এস,কে কৃষ্ণা ঢাকা বিভাগীয় ব্যুরো চীফঃ ওয়ান ইলেভেন সরকারের সময় ২০০৭ সালের ৭ মে যুক্তরাষ্ট্র থেকে লন্ডন হয়ে সরকারের বাধা উপেক্ষা করে দেশে ফেরার প্রসঙ্গে জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। সেদিন সরকারের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে বিমানবন্দরে স্বাগত জানানোর জন্য দলের নেতাকর্মী ও দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান আওয়ামী লীগ সভাপতি।

মঙ্গলবার (৭ মে) সংসদে ওই সময়কার ঘটনা বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বারবার গ্রেফতার হয়েছি। অনেক বাধা, সরাসরি গুলি, বোমা, গ্রেনেড সবকিছু অতিক্রম করে আজ জনগণের সেবা করতে পারছি। সাহসের সঙ্গে এগিয়ে চলে জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। জনগণের শক্তি নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি।

এর আগে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং সরকারের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী আব্দুর রহমান ২০০৭ সালের ৭ মে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন নিয়ে সংসদে অনির্ধারিত আলোচনার সূত্রপাত করেন। বিষয়টি নিয়ে সরকারি দলের অপর এমপি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনও কথা বলেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকের দিনটি আমার জন্য অনন্য দিন। আমি সেদিন শত বাধা অতিক্রম করে ফিরে এসেছিলাম। সেই সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অনেক উপদেষ্টাও ফোন করে বলেছিলেন আপনি আসবেন না। আপনার বাইরে থাকার যা যা লাগে আমরা করবো। আবার কেউ কেউ আমাকে ধমকও দিয়েছিল। এ কথা বলা হয়েছিল, বাংলাদেশে ফিরলে বিমানবন্দরেই মেরে ফেলা হবে।

তিনি বলেন, আমি বলেছিলাম- আলহামদুলিল্লাহ, বাংলাদেশের মাটিতেই মরবো। কিন্তু আমি আসবো। সব এয়ারলাইন্সকে নিষেধ করা হয়েছিল আমাকে যাতে বোর্ডিং পাস দেওয়া না হয়। আমেরিকার বিমানবন্দরে তিন ঘণ্টা দাঁড়িয়ে তাদের সঙ্গে ঝগড়া করে ব্রিটিশ এয়ারওয়েজে লন্ডনে আসি। সেখানে আসার পরে যখন প্লেনে উঠতে যাবো, তখন আমাকে উঠতে দেওয়া হয়নি। সেদিন প্রতিজ্ঞা করেছিলাম যেভাবে হোক বাংলাদেশে আসবো। এমনকি যখন আমি বিমানবন্দরে রওনা হই তখন অনেকেই ফোন করে বলেছিল আপনি আসবেন না, আসলে মেরে ফেলে দেবে। আমি পরোয়া করিনি।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, তখন বলা হয়েছিল কেউ যাতে বিমানবন্দরে না যায়। এমনকি আমার দলের ভেতর থেকেও…তখন দলের যিনি সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, তিনি সবাইকে বলে দিয়েছিলেন কেউ বিমানবন্দরে গেলে বহিষ্কার করা হবে। কয়েকজনের নাম নির্দিষ্ট করা ছিল, আমাদের নেতাকর্মী কেউ রাস্তায় থাকতে পারবে না। আমি শুধু মেসেজ দিয়েছিলাম সবাই থাকবে। তবে আমরা গেরিলা যুদ্ধ করেছি, সবাই ঘাসের সঙ্গে মিশে থাকবা। আমি প্লেন থেকে না নামা পর্যন্ত তোমরা বের হবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাকে বলা হয়েছিল গাড়িতে উঠলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হবে। আমি উঠে ড্রাইভারকে বলেছিলাম যেখানে মানুষ আছে সেখান দিয়ে যাবা। ফ্লাইওভারে উঠবা না। হাজার হাজার মানুষ রাস্তায়। আমি কৃতজ্ঞতা জানাই পার্টির নেতাকর্মীদের, সেদিন তারা একদিকে রক্তচক্ষু উপেক্ষা করেছে, আরেক দিকে আমাদের দলের কিছু লোকের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থেকে সংবর্ধনা দিয়েছিল। এটা সংবর্ধনাই শুধু নয়, আমাকে নিরাপত্তাও দিয়েছে। যেন আমাকে কোনোদিকে নিতে না পারে। এরপর তো এক প্রকার হাউজ অ্যারেস্ট (সুধা সদন) ছিলাম। কাউকে ঢুকতে দিতো না। হঠাৎ কালেভদ্রে দু-একজন আসতে পারতো আমার কাছে।

শেখ হাসিনা ওয়ান ইলেভেন সরকারের সময় গ্রেফতার হওয়ার আগে রাজধানীর একটি হাসপাতালে ক্যানসার আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন বিশিষ্ট সংগীতশিল্পী সাবিনা ইয়াসমিনকে দেখতে যাওয়ার প্রসঙ্গ টেনে বলেন, আমি অনেকটা গেরিলা কায়দায়ই বেরিয়ে গিয়েছিলাম। কারণ আমি জানি আমাকে বের হতে দেবে না। সেই সময়ে পুলিশের চোখ এড়িয়ে সোজা হাসপাতালে চলে যাই। তখন আমি কতগুলো কথা বলেছিলাম। কারণ সেই সময় দেশ চালাচ্ছে কে– সেটা আমার প্রশ্ন ছিল। সেদিন আমি খুব কড়া কথা কিছু বলি। পরদিন সকালেই পুলিশ হাজির, আর্মি হাজির এবং আমাকে অ্যারেস্ট করে। সংসদ ভবনের একটা… তখন ওটা প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল, সেখানে আমাকে নিয়ে আসে। সমস্ত একেবারে ফাংগাস পড়া। খুবই নোংরা একটা ভবন। সেখানে আমাকে বন্দি করে রাখে।

তিনি বলেন, শুধু ওই দিন নয়, ১৯৮৩ সালে এরশাদ সাহেবও আমাদের গ্রেফতার করে নিয়ে গিয়েছিল ৩০ নম্বর হেয়ার রোড, লাল দালান, সেখানে রেখেছিল। সেখান থেকে ডিজিএফআইয়ের অফিসে নিয়ে যায় জিজ্ঞাসাবাদ করতে। এরশাদ সাহেবের সময়ে বেশ কয়েকবার গ্রেফতার করে, হাউজ অ্যারেস্ট করে। কখনও সারা রাত কন্ট্রোল রুমে বসিয়ে রাখে। এরকম বারবার গ্রেফতারও হয়েছি। অনেক বাধা, সরাসরি গুলি, বোমা, গ্রেনেড সবকিছু অতিক্রম করে আজ এখানে এসে জনগণের সেবা করতে পারছি। আমি বাংলাদেশের জনগণ ও আমার দলের নেতাকর্মীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে দাঁড়িয়েছি। আজ অনেকে বেঁচে নেই। তারা এবং সাধারণ জনগণ রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে সেদিন গিয়েছিলেন। যার জন্য আমি দেশে ফিরে আসতে পেরেছি।

আমি প্রতিজ্ঞা করেছিলাম আমি ফিরে আসবোই। ১৭ মে (১৯৮১ সালের) ওইভাবে এসেছিলাম। পরে ৭ মে এসেছিলাম ২০০৭ সালে। আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এটুকু বলতে চাই, বাবা মা আমাদের শিখিয়েছেন সাহসের সঙ্গে এগিয়ে চলা। সেই সাহসের সঙ্গে এগিয়ে চলে জনগণের জন্য কাজ করা। সেটাই আমি করে যাচ্ছি। বাবা, মা, ভাইদের হারিয়ে আমার আর কিছুই ছিল না। দেশের জনগণই আমার একমাত্র শক্তি ও প্রেরণা। এই শক্তি নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশকে জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ করবো, যোগ করেন শেখ হাসিনা।

ওয়ান ইলেভেনের সময় বোন রেহানার ভূমিকা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমি যখন বন্দি ছিলাম, আমার ছোট বোন রেহানা, সে রাজনীতি করে না। সামনে নেই। কিন্তু সে অসাধ্য সাধন করতে পারে। প্রত্যেকটা জেলা-উপজেলার সব নেতাকর্মী সবার সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছে। ওই লন্ডনে বসেই সে কাজ করেছে। তার জন্যও আমার দোয়া।