Add more content here...
Dhaka ০৫:২০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনামঃ
নোটিশঃ
প্রিয়" পাঠকগণ", "শুভাকাঙ্ক্ষী" ও প্রতিনিধিদের উদ্দেশ্যে জানানো যাচ্ছে:- কিছুদিন যাবত কিছু প্রতারক চক্র দৈনিক ক্রাইম তালাশ এর নাম ব্যবহার করে প্রতিনিধি নিয়োগ ও বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে। তার সাথে একটি সক্রিয় চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন গ্রুপ বিভিন্ন ভাবে "দৈনিক ক্রাইম তালাশ"কে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। মনে রাখবেন "দৈনিক ক্রাইম তালাশ" এর অফিসিয়াল পেজ বা নিম্নের দুটি নাম্বার ব্যাতিত কোন রকম লেনদেনে জড়াবেন না। মোবাইল: 01867329107 হটলাইন: 01935355252

চন্দনাইশে দুর্গাপূজার প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত শিল্পীরা

  • Reporter Name
  • Update Time : ০৪:২৯:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০২৩
  • ১১৫ Time View

মোঃআমিন উল্লাহ টিপু,চন্দনাইশ প্রতিনিধি:
সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত সময় পার করছেন চন্দনাইশের প্রতিমা শিল্পীরা। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি হিসেবে দেবী দুর্গার রূপ সুন্দর ও আকর্ষণীয় করার কাজ চলছে।
চন্দনাইশ উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটি জানায়, আগামী ২০ অক্টোবর সৃষ্টি পূজার মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজা শুরু হবে। ২১ অক্টোবর মহাসপ্তমী, ২২ অক্টোবর মহাঅষ্টমী, ২৩ অক্টোবর মহানবমী অনুষ্ঠিত হবে। ২৪ অক্টোবর বিজয়াদশমী, এই দিন প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে পূজা শেষ হবে।

সরেজমিনে চন্দনাইশের কয়েকটি মণ্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ। এখন মূর্তি শুকানো ও রঙ তুলির আচরে কাজ করছেন শিল্পীরা। অনেকেই দেবী দুর্গার সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছেন।
শিল্পী মিন্টু পাল বলেন, প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। শেষ মুহূর্তে দেবী দুর্গাকে রঙ তুলির মাধ্যমে সাজানোর কাজ করছি। আশা করছি কয়েক দিনের মধ্যে শেষ করতে পারবো।

তিনি আরও বলেন, চন্দনাইশ পূজামণ্ডপ ছাড়াও এবার জেলা শহরে দুর্গাপূজায় ৫ মণ্ডপের প্রতিমা তৈরি করেছি। আশা করছি এতে বেশ লাভবান হবো। সংসারের যাবতীয় খরচ এর উপর নির্ভর করে। প্রায় ১০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। দেশের বিভিন্ন স্থানে আমি প্রতিমা তৈরির কাজ করে থাকি।
এ বিষয়ে চন্দনাইশ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব কৃষ্ণ চক্রবর্তী বলেন, উপজেলায় এবার ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ১২৮টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

চন্দনাইশ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক বিষ্ণুযশা জানান, শান্তির্পূণভাবে পূজা উদযাপনের জন্য পুলিশ, আনসার সদস্য প্রতিটি পূজামণ্ডপে দায়িত্ব পালন করবে। এছাড়া বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরাও দায়িত্ব পালন করবে। যাতে করে প্রতিটি পূজামণ্ডপে শান্তিপূর্ণভাবে পূজা অনুষ্ঠিত হতে পারে তার জন্য আমাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছে।

Tag :

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

About Author Information

Popular Post

বাংলাদেশি it কোম্পানি

x

চন্দনাইশে দুর্গাপূজার প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত শিল্পীরা

Update Time : ০৪:২৯:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০২৩

মোঃআমিন উল্লাহ টিপু,চন্দনাইশ প্রতিনিধি:
সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজাকে কেন্দ্র করে ব্যস্ত সময় পার করছেন চন্দনাইশের প্রতিমা শিল্পীরা। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি হিসেবে দেবী দুর্গার রূপ সুন্দর ও আকর্ষণীয় করার কাজ চলছে।
চন্দনাইশ উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটি জানায়, আগামী ২০ অক্টোবর সৃষ্টি পূজার মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজা শুরু হবে। ২১ অক্টোবর মহাসপ্তমী, ২২ অক্টোবর মহাঅষ্টমী, ২৩ অক্টোবর মহানবমী অনুষ্ঠিত হবে। ২৪ অক্টোবর বিজয়াদশমী, এই দিন প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যে দিয়ে পূজা শেষ হবে।

সরেজমিনে চন্দনাইশের কয়েকটি মণ্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, প্রতিমা তৈরির কাজ শেষ। এখন মূর্তি শুকানো ও রঙ তুলির আচরে কাজ করছেন শিল্পীরা। অনেকেই দেবী দুর্গার সৌন্দর্য্য বৃদ্ধিতে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছেন।
শিল্পী মিন্টু পাল বলেন, প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। শেষ মুহূর্তে দেবী দুর্গাকে রঙ তুলির মাধ্যমে সাজানোর কাজ করছি। আশা করছি কয়েক দিনের মধ্যে শেষ করতে পারবো।

তিনি আরও বলেন, চন্দনাইশ পূজামণ্ডপ ছাড়াও এবার জেলা শহরে দুর্গাপূজায় ৫ মণ্ডপের প্রতিমা তৈরি করেছি। আশা করছি এতে বেশ লাভবান হবো। সংসারের যাবতীয় খরচ এর উপর নির্ভর করে। প্রায় ১০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরির কাজ করছি। দেশের বিভিন্ন স্থানে আমি প্রতিমা তৈরির কাজ করে থাকি।
এ বিষয়ে চন্দনাইশ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব কৃষ্ণ চক্রবর্তী বলেন, উপজেলায় এবার ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ১২৮টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

চন্দনাইশ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক বিষ্ণুযশা জানান, শান্তির্পূণভাবে পূজা উদযাপনের জন্য পুলিশ, আনসার সদস্য প্রতিটি পূজামণ্ডপে দায়িত্ব পালন করবে। এছাড়া বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরাও দায়িত্ব পালন করবে। যাতে করে প্রতিটি পূজামণ্ডপে শান্তিপূর্ণভাবে পূজা অনুষ্ঠিত হতে পারে তার জন্য আমাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় নজরদারির ব্যবস্থা করা হয়েছে।